আপডেট নিউজ লাইভ

ফ্রিল্যান্সিং করে মাসে কত টাকা আয় করা সম্ভব?

লেখক: আপডেট নিউজ লাইভ
প্রকাশ: 1 month ago

Spread the love

হ্যা অবশ্যই সম্ভব। আজকে আমরা শিকবো ফ্রিল্যান্সিং কি? এবং ফ্রিল্যান্সিং করে কীভাবে  টাকা আয়করা যায়:-

মানুষ এখন অনলাইনে অর্থ আয়ের জন্য নানা কৌশল প্রয়োগ করে আসছে। অনলাইনে আয়ের নানা পথও তৈরি হয়েছে এখন বর্তমান বিশ্বে। তবে অনলাইনে কাজ করে আয় করতে গেলে কোন প্ল্যাটফর্ম ধরে এগোচ্ছেন, আপনাকে সে বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। অনলাইনে ফ্রিলান্সিং কাজ করে রাতারাতি কোটিপতি বনে যাওয়ার কোন সুযোগ নেই।কিছু অনলাইন প্ল্যাটফর্ম, ওয়েবসাইট ও রিসোর্স আছে, যা কাজে লাগিয়ে ফ্রিলান্সিং করে অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

আগে আপনাকে যে কোন একটা বিষয়ে দক্ষ হতে হবে। এরপর অনলাইন মার্কেটপ্লেস গুলতে একটু বেশি সময় দিতে হবে। একটু বেশি ঘাটাঘাটি করতে হবে। যারা অনেক দিন থেকে কাজ করে, তাদের প্রোফাইল দেখতে হবে। তাদের প্রোফাইল দেখে তাদের প্রোফাইলের মত নিজের প্রোফাইল ভালোভাবে সাজাতে হবে ।

এবং ইংরেজীতে একটু বেশি দক্ষ হতে হবে। এমন না যে ফ্লুয়েন্টলি আপনাকে কথা বলতে হবে বা যোগ করতে হবে বা লিখতে হবে। অন্তত একটি জব পোস্ট পড়ে কি কি করতে বলছে, কি কি করতে হবে এবং ক্লায়েন্টের সাথে কথা বলার মত ইংরেজী জ্ঞান দক্ষতা থাকতে হবে।

১. ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা আয়ঃ-

অনলাইনে অর্থ উপার্জনের জন্য ফ্রিল্যান্সিং সর্বদা একটি জনপ্রিয় সহজ উপায় এবং ইন্টারনেটের বিভিন্ন বিকল্প রয়েছে। বিভিন্ন দক্ষতা আছে এমন লোকদের জন্য ফ্রিল্যান্স টাস্ক অফার করে আসছে। এমন বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট রয়েছে। আপনাকে যা করতে হবে তা হ’ল প্রথমে একটি অ্যাকাউন্ট তৈরি করা, তালিকাগুলির মাধ্যমে ব্রাউজ করা,এবং আপনার পক্ষে উপযুক্ত কাজের জন্য অনলাইনে আবেদন করা।

কিছু ওয়েবসাইট এমনকি আপনার স্কিলসেটের বিষয় সহ একটি ব্যক্তিগত তালিকা তৈরি করার প্রয়োজন হতে পারে, যাতে আগ্রহী ক্লায়েন্টরা সরাসরি আপনার সাথে ভালোভাবে যোগাযোগ করতে পারে।

আউটফিভার ডটকম, আপওয়ার্ক ডটকম, ফ্রিল্যান্সার ডটকম এবং ওয়ার্কহাইনার ডট কম এমন কিছু ওয়েবসাইট যা ফ্রিল্যান্স জব সরবরাহ করে থাকে। আপনি এই ওয়েবসাইটগুলির মাধ্যমে ৫ ডলার থেকে এবং ১০০ ডলার এর মধ্যে যে কোনও জায়গায় আপনি উপার্জন করতে পারবেন।

তবে মনে রাখবেন যে, প্রদত্ত কাজটি সফলভাবে শেষ করার পরে আপনি কেবলমাত্র অর্থ পরিশোধ করবে। এবং এটি আপনার ক্লায়েন্টের দ্বারা অনুমোদিত হয়ে গেছে। এটি এমনকি আপনার ক্লায়েন্টদের প্রয়োজনীয়তা পূরণ না করা হলে, কাজটি কয়েকবার সংশোধন করার অর্থ হতে পারে।

বেশিরভাগ ক্লায়েন্টরা এর মাধ্যমে ডিজিটাল মাধ্যমে অর্থ প্রদান করতে পছন্দ করায়, কিছু সাইট আপনাকে একটি পেপাল অ্যাকাউন্ট সেট আপ করতে বলবে। অনলাইনে টাকা আয় করার সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি।

২। নিজস্ব ওয়েবসাইটের মাধ্যমে টাকা আয়ঃ-

আপনার নিজের ওয়েবসাইট একসাথে রাখতে সহায়তা করার জন্য অনলাইনে পর্যাপ্ত উপাদান রয়েছে। এর মধ্যে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য ডোমেন, টেমপ্লেট, লেআউট এবং সামগ্রিক নকশা নির্বাচন করা অন্তর্ভুক্ত।

একবার প্রাসঙ্গিক বিষয়বস্তু দিয়ে দর্শকদের পরিষেবা দেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে গেলে, গুগল অ্যাডসেন্সের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে হবে, যখন আপনার ওয়েবসাইটে উপস্থিত দর্শকের সংখ্যা বেশি হয়,এবং দর্শকদের দ্বারা আপনার সাইটে দেখতে দেখতে ক্লিক করা হয়, দর্শকরা আপনার সাইটে যতবেশী ক্লিক করবে আপনার অ্যাডসেন্সে তত বেশি ডলার যোগ হবে আর আপনাকে অর্থোপার্জনে সহায়তা করে দিবে। আপনি আপনার ওয়েবসাইটে যত বেশি ট্র্যাফিক পাবেন, তখন আপনার আয়ের সম্ভাবনা তত বেশি হবে।

৩. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে টাকা আয়ঃ-

আপনার ওয়েবসাইটটি একবার চালু হয়ে গেলে আপনি সংস্থাগুলি আপনার সাইটে ওয়েব লিঙ্কগুলি সন্নিবেশ করার অনুমতি দিয়ে অনুমোদিত বিপণনের জন্য বেছে নিতে পারেন আপনি। এটি প্রতীকী অংশীদারিত্বের মতো। আপনার সাইটের দর্শকরা যখন এই জাতীয় লিঙ্কগুলিতে ক্লিক করে,পণ্য কিনে থাকেন, আপনি সেগুলি থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। অনলাইনে টাকা আয় করার সবচেয়ে ভালো পদ্ধতি।

৪. সার্বে করে টাকা আয়ঃ-

অনলাইনে সমীক্ষা করানো, অনলাইন অনুসন্ধান চালানো এবং পণ্যাদির উপর পর্যালোচনা লেখার জন্য অর্থ প্রদান করে এমন বেশ কয়েকটি ওয়েবসাইট রয়েছে অনলাইনে। ক্রেডিট পেতে, কোনও ব্যক্তির ব্যাংকিংয়ের বিশদ সহ তাদের কাছে নির্দিষ্ট তথ্য প্রকাশ করা দরকার আছে।

এজন্য আপনার এই রুটটি অত্যন্ত যত্ন সহকারে ব্যবহার করা উচিত হবে। তাদের মধ্যে কেউ কেউ আপনাকে প্রকল্পে কাজ করার আগে তাদের সাথে নিবন্ধকরণ করতে বলতে পারে আপনাকে সেই বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। এই জাতীয় প্রকল্পগুলির মধ্যে সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ নজরদারি হ’ল অর্থের প্রস্তাব দেওয়া ওয়েবসাইটগুলি থেকে দূরে থাকাই সত্য বলে মনে হয়।

ওয়েবসাইটটির খ্যাতি মূল্যায়নের সময় সতর্কতা অবলম্বন করুন কারণ এর মধ্যে অনেকগুলি কেলেঙ্কারী হতে পারে সেদিকে মনোযোগ দিতে হবে। বেশিরভাগ সাইটগুলি চেক পেমেন্টের অনুলিপিগুলি প্রদর্শন করে থাকে। এমন ব্যবসায়ের প্রচার করে যা কেবল মধ্যস্থদের দেওয়া হয়ে থাকতে পারে। অনলাইনে টাকা আয় করার সবচেয়ে ভালো মাধ্যম ।

৫. ভার্চুয়াল এসিস্টেন্টের মাধ্যমে টাকা আয়ঃ-

কারও বাড়ি থেকে সমস্ত কর্পোরেট স্টাফ করা ভার্চুয়াল সহকারী (ভিএ) যা করে। ভিএগুলি মূলত তাদের ক্লায়েন্টদের সাথে দূরবর্তীভাবে কাজ করে এবং তাদের ব্যবসায়ের এমন দিকগুলি পরিচালনা করে থাকে। যে তারা নিজেরাই পরিচালনা করতে খুব ব্যস্ত হয়ে পড়ে। আপনি যখন ভার্চুয়াল সহকারী হিসাবে কাজ করেন, আপনি কোনও কর্মচারী হিসাবে কাজ করতে বা আপনার নিজের ব্যবসা সেট আপ করতে পারবেন।

ভিএগুলি হ’ল দক্ষ, গৃহ-ভিত্তিক পেশাদার যা সংস্থা, ব্যবসায় এবং উদ্যোক্তাদের প্রশাসনিক সহায়তা দেয়। কাজের কিছু বড় ক্ষেত্রগুলির মধ্যে রয়েছে ফোন কল করা, ইমেল চিঠিপত্র, ইন্টারনেট গবেষণা, ডেটা এন্ট্রি, সময়সূচী অ্যাপয়েন্টমেন্ট, সম্পাদনা, লেখা, বই রক্ষণ, বিপণন, ব্লগ পরিচালনা, প্রুফরিডিং, প্রকল্প পরিচালনা, গ্রাফিক ডিজাইন, প্রযুক্তি সহায়তা, গ্রাহক পরিষেবা, ইভেন্ট পরিকল্পনা, এবং সামাজিক মিডিয়া পরিচালনা ইত্যাদি।

আমাদের পরবর্তী  পোস্ট গুলো পড়তে www.updatenewslive.com কে সাবস্ক্রাইব করে রাখুন। আর বেশি বেশি শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের মাঝে।